শিরোনাম


Spread the love

ডেস্ক নিউজঃ

মাগুরায় অসহায়-দরিদ্র ৯০ বছরের বৃদ্ধা ইঙ্গুল বড়ুয়ার দুই ছেলে। কিন্তু ছেলেরা তাকে খাবার দেয় না।

প্রতিবেশিদের বাড়ি গিয়ে খাবার চেয়ে খেতে হয় এই অসুস্থ বৃদ্ধাকে। সরকারের দেওয়া বয়স্ক ভাতার টাকায় তার ওষুধ খরচ চলে।

কিছুদিন ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা তুলতে পারলেও মোবাইল ফোনে অ্যাপের মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খোলার পর আর টাকা তুলতে পারেননি তিনি। সমাজসেবা অফিসে এসেও সমস্যার সমাধান করতে না পেরে কান্নাকাটি করে বাড়ি ফিরেছেন খালি হাতে।

মাগুরার চরপাঁচুড়িয়া গ্রামের ছিয়ারন বেগম নামে এক বয়ষ্ক ভাতাভোগী বলেন, সামনে ঈদ,ছেলেরা খাতি দেয়না। ভাবছিলাম ভাতার টাকা দিয়ে কিছু খাবানি।

কিন্তু টাকা তুলতি পারলাম না। এখন সাহায্য চায়েই খাতি হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছিয়ারন বেগমের দেওয়া মোবাইল নাম্বার ছিল ০১৭৪৭২৩৩৭৬৭। কিন্তু তার টাকা চলে গেছে অন্য নাম্বারে। টাকা চলে যাওয়া ওই নাম্বারে কয়েকদিন ফোন দিলে নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।

সমাজসেবা অফিস থেকে জানানো হয়, এখন পর্যন্ত প্রায় ২০০ ভাতাভোগির টাকা অজ্ঞাত নাম্বারে চলে গেছে। এছাড়া অনেক ভাতাভোগী আছেন, তাদের নাম্বার সঠিক থাকলেও তারা এখনও টাকা পাননি।

তারা জানান, সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক বয়ষ্ক ভাতা, বিধবা ভাতা ও অসচ্ছল প্রতিবন্ধীদের ভাতা ব্যাংক অ্যাকাউন্টের পরিবর্তে নগদের মাধ্যমে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এই উপজেলায় তার বাস্তবায়ন হয় গত মে মাস থেকে।

জানা যায়, এখানে ২০হাজার ২৮জন ভাতাভোগীর মধ্যে ১১হাজার ৩৮জন পান বয়ষ্ক ভাতা, ৫ হাজার ৬৩৩জন পান বিধবা ভাতা ও ৩হাজার ৩৫৭জন পান অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা। বিধবা ও প্রতিবন্ধীরা মাসে ৭৫০টাকা এবং বছরে নয় হাজার টাকা ভাতা পান। বয়স্করা পান মাসে ৫০০টাকা করে বছরে ছয় হাজার টাকা।

গত বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে সমাজসেবা অফিসে দেখা যায়, সময়মতো টাকা না পাওয়া অসহায় ভাতাভোগীদের অনেকেই সকাল থেকে অফিসে গেছেন।  

ওই সময় ইঙ্গুল বড়ুয়া নামে এক বৃদ্ধা কেঁদে কেঁদে বলেন, এক বচ্ছর ভাতা পাই না। ছেলে দুইডে ভ্যান রিক্সা চালায়। খাবার পরবার দিতি পারেনা। চায়ে চিন্তেই খাওয়া ছাড়া উপায় নাই।

মোহাম্মাদপুর উপজেলা সমাজসেবা অফিসার জয়নুল আবেদীন জানান, মোবাইল নাম্বার দেওয়ার কাজ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে যাদের মোবাইল নাম্বার ভুল আছে তাদেরগুলো সংশোধন করে দিচ্ছি। এছাড়া টাকা না পাওয়াদের তালিকা করে কৃর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।  

শান্তিবার্তা ডটকম/১৭ জুলাই ২০২১ খ্রী./বানি