অমানিশা ঘোর অন্ধকার হেঁটে যাচ্ছে পূর্ণ বয়সী চাঁদ
উপেক্ষা করছে দৃশ্যমান আকাশের উদারতা
দ্রোহের আগুনে পুড়ে যাচ্ছে শান্তির বারতা,
অদৃশ্য ঘাতক কেড়ে নিচ্ছে এক একটি তাজা প্রাণ
আলিঙ্গন করছে মৃত্যুদূতের কঠিন বাহুডোর,
সভ্যতার সাথে মৃত্যুদূতের যেন পুরোহিত সখ্যতা,
একাকী চিলের মত মধ্যদুপুরে বেদনার কান্না করছে
স্ট্রেচারে প্রিয়জনের লাশ,
চিৎকারে বাতাস ভারী হচ্ছে কবরের পর কবর, লাশের গাড়ী চারিপাশ,
কর্ণকুহর ভেদ করে চলেছে অ্যাম্বুলেন্সের সাইরেন,
বুকে আঘাত করছে রাতের বীভৎস চিত্র,
চিতার আগুনে জ্বলছে ভালোবাসা জ্বলছে প্রিয় সম্পর্ক,
সুপেয় চায়েরকাপে অদৃশ্য ঘাতকের জলকেলি উৎসব
চুমুকে চুমুকে চোখের কোনে জড়ো হয়েছে অশ্রুর এক মহাসমুদ্র,
বিশুদ্ধ রোদ্রের আর্দ্রতায় বাতাসে লেপ্টে থাকে লাশের ঘ্রাণ,
আজ মৃত্যু উপত্যকায় প্রদক্ষিণ করে প্রত্যাশার আর কোন ভোর হবেনা,
অনিন্দ্য ঝলমল আলোয় আনন্দধারায় প্রেমিকের জন্য হবেনা লেখা নব কবিতা,
চোখে পড়বেনা ভাষাহীন প্রেমের উল্লাশ,
কবির হৃদয় মর্মভেদী শুধুই স্বজন হারানোর বেদনায় শূণ্য হাহাকার……………..

— ফারজানা শারমিন
১২ – ০১ – ২০২১ ইং

শান্তিবার্তা ডটকম/১২ জানু ২০২১ খ্রী./ ফারজানা