শিরোনাম
  তাহিরপুরে বিয়ের মাধ্যমে পরিপূর্ণতা পেল সেই কলেজ ছাত্রীর ভালোবাসা       সুনামগঞ্জে উন্নয়ন প্রকল্প সম্পর্কে মতবিনিময় সভা       বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাঙালির মুক্তির সনদ-৬ দফা বিষয়ক অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ       প্রেমিক পুরুষ- ফারজানা শারমিন       দোয়ারায় প্রতারণা, ব্যাংকের সাড়ে ৮ লাখ টাকা উধাও       করোনায় দেশে আরও ৫৪ জনের মৃত্যু       করোনায় শামসুদ্দিন হাসপাতালে বিয়ানীবাজারের কিশোরীর মৃত্যু       তথ্য আপা প্রকল্পে জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করার সুপারিশ       প্রণোদনা প্যাকেজে ১৩১ কোটি ১৪ লাখ টাকার এসএমই ঋণ বিতরণ       হবিগঞ্জে পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধ, ছুরিকাঘাতে নির্মাণ শ্রমিক খুন    


তাহিরপুর প্রতিনিধিঃ

দুই দিন ধরে অনশনে থাকার পর সেই কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীর ভালোবাসা পরিপূর্ণতা পেল বিয়ের মধ্য দিয়ে । ঘটনাটি ঘটেছিল বাদাঘাট (উ.) ইউনিয়নের মল্লিকপুর গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে (প্রেমিক) তায়েফ (২৫) আহমেদের বাড়িতে।

প্রেমিকার বাবার দায়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা তাহিরপুর থানার বাদাঘাট পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই মাহমুদুল হাসান মঙ্গলবার রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপরই টনক নড়ে প্রেমিকের পরিবারের।

বুধবার সকালে উভয় পরিবারের লোকজনের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়। এক পর্যায়ে বিয়েতে সম্মত হয় প্রেমিক তায়েফের পরিবার। বুধবার সন্ধ্যায় উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে তায়েফের বাড়িতে তিন লাখ টাকা দেনমোহর ধার্য্য করে সামাজিকভাবেই বিয়ে সম্পন্ন হয় প্রেমিক যুগলের।

উল্লেখ্য, গত সোমবার সকালে প্রেমিক তায়েফের অন্যত্র বিয়ের কথা চলছে এমন খবর পেয়ে প্রেমিকা ঐদিন দুপুরে বাদাঘাট বাজারের হাজী মার্কেটের একটি কসমেটিকসের দোকানে তায়েফের সাথে দেখা করে তাদের নিজেদের মধ্যে বিয়ের বিষয়ে প্রায় ঘন্টাব্যাপী কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তায়েফ তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে পরে সন্ধ্যায় প্রেমিকা বিয়ের দাবিতে তায়েফের বাড়িতে অবস্থান করে অনশন শুরু করে।

বিষয়টি গ্রামবাসীর মধ্যে জানাজানি হলে, রাত ১১টা নাগাদ বাদাঘাট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আলী আহমদ, শের আলীসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে বিষয়টি নিয়ে উভয়পক্ষের লোকজনদের সাথে আলোচনায় বসেন। আলোচনা শেষে অনশনরত প্রেমিকাকে মল্লিকপুর গ্রামের আছদ্দর মল্লিকের হেফাজতে রাখা হয় এবং সকালে থানার ওসি ও ইউএনও’র উপস্থিতিতে বিষয়টি সমাধান করা হবে বলে চেয়ারম্যান ও অন্যন্যরা চলে আসেন।

এবং এ ঘটনায় প্রেমিকার বাবা ননাই গ্রামের ফজলু মিয়া বাদী হয়ে প্রেমিক তায়েফ, তার বাবা আব্দুল হক ও চাচা যুবলীগ নেতা শাহ আলমকে অভিযুক্ত করে তাহিরপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

শান্তিবার্তা ডটকম/২৬ আগস্ট ২০২০