শিরোনাম


হাওর কন্যা সুনামগঞ্জ
জল জোছনার ছায়াঘেরা শহর
স্বচ্ছ জলে সিক্ত হয়ে থাকি
প্রতিটি মাস, শীত গ্রীষ্ম সারাটি বছর।
সুরমার তীরে গড়ে ওঠা
চিরসবুজ সুন্দর সুবিড় গ্রাম
হাছন রাজা, রাধারমণ, শাহ আব্দুল করিম
লোকগানে সারাবিশ্বে কুড়িয়েছেন সুনাম।
মেঘালয়ের কোল ঘেষা শত হাওর বাওর
খাল বিল নদীনালা
যাদুকাটা, রক্তি, বৌলাই, পাটলাই, সুরমার উত্তাল জল
প্রাণ করে উতলা।
করচার হাওর, দেখার হাওর, মাটিয়ান হাওর
টাংগুয়ার হাওরের সুমিষ্ট স্বচ্ছ জলে
বুনোহাস, পানকৌড়ি ডুব দেয়
হিজল করচ আর নলখাগড়া বনে
শত প্রজাতির পাথি আনন্দে সুর তুলে।
টেংরা, পুটি,পাবদা, কই,বোয়াল, রুই
গইন্যা, কাতলা, বাহুশ, মৃগেল, রাণী, বালিগড়া
নাম না জানা কত মাছের প্রজাতি
হাওর বাওরে জন্মে তারা
সারা দুনিয়ায় আছে নাম ডাক সুখ্যাতি।
নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলানিকেতন
নীলাদ্রি, বারিকের টিলা, শিমুল বাগান
যাদুকাটার স্বচ্ছ জলে ডুব দিয়ে
শত পর্যটক জুড়ায় পরাণ।
চিকচিক করা সাদা বালি চর
মেঘালয়ের সবুজ সুউচ্চ পাহাড়
রাজারগাঁও এ অদৈত্ব মহাপ্রভুর মন্দির
লাউড়ের গড়ে শাহ আরোফিন শাহের মাজার।
মেলা আর পূণ্যস্নানে বছরে তিনদিন ঘটে মহামিলন
হিন্দু মুসলিম সবাই একসাথে ঘুরে
হাসি গানে আনন্দে ভরে মন।
গেঁথে আছে যুগ যুগ ধরে সম্প্রীতির সুদৃঢ় বন্ধন।
রুপের মাধুরি মিশে আছে
হাওর কন্যার পুরো আঁচল, প্রতি ফোঁটা অঙ্গে
যতই খোঁজ নাকো এত রুপের মাধুরি
পাবে না এ সোনার বঙ্গে!
যেখানেই যাই, ফিরে আসি বার বার
সুনামগঞ্জের সুনাম, ইতিহাস ঐতিহ্য, রুপ লাবণ্য
আমার গৌরব, আমার অহংকার।

বাবা মেয়ে

শান্তিবার্তা ডটকম/১৯ আগস্ট ২০২০/ মাসুদ