শিরোনাম
  কল্যাণ তহবিলের টাকা নিয়ে সিলেটে পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ, ভাঙচুর       দেশের প্রত্যেক জেলা হাসপাতালে আইসিইউ নিশ্চিতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর       দেশে রেকর্ড শনাক্তের দিনে আক্রান্ত ৫০ হাজার ছাড়াল       একনেকে ১৬ হাজার ২৭৬ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন       সিলেটে আজ আরও ৪৯ করোনা রোগী শনাক্ত       সিলেট শাবিতে নমুনা পরীক্ষায় সুনামগঞ্জের ৫ জন র‍্যাব সদস্যসহ ৯ জনের করোনা শনাক্ত       সুনামগঞ্জে করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তির দাফনে তাক্বওয়া ফাউন্ডেশন       না বলা কথা- আসিফ ইকবাল ফায়সাল       করোনা মোকাবেলায় প্রোটিনের ঘাটতি পূরণে গরুর মাংস ও চাল বিতরণ       সুনামগঞ্জে প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু    


ডেস্ক নিউজঃ

শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের টাকা নিয়ে বিরোধের জের ধরে সিলেটের কদমতলী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে পরিবহন শ্রমিকদের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার বিকেলে এ সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন শ্রমিক আহত হন ও বেশকয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। করোনা সংক্রমণের সময়ে লাঠিসোটা নিয়ে এই সংঘধাতে জড়ায় শ্রমিকরা।

জানা যায়, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের সহ সভাপতি ও সিলেট সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিকের বিরুদ্ধে কল্যান তহবিলের দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে শ্রমিকদের একটি পক্ষ কদিন ধরেই বিক্ষোভ করে আসছিলো। মঙ্গলবার সকাল থেকে দক্ষিণ সুরমার বাবনা এলাকার শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে তারা আবার বিক্ষোভ শুরু করেন। বিকেলে বিক্ষোভকারীরা মিছিল নিয়ে কদমতলী বাস টার্মিনালের দিকে রওয়ানা দেন। মিছিল থেকে বাস টার্মিনাল এলাকায় এনা পরিবহনের কাউন্টারের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত ফলিকের অফিস লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকেন কয়েকজন। এরপর সংষর্ঘে জড়িয়ে পড়ে দুইপক্ষ।

আন্দোলনকারী শ্রমিকদের অভিযোগ, ফলিকের অফিস থেকে তার ছেলে শ্রমিকদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়েন। এরপরই ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে শ্রমিকরা। এসময় এনা বাসের কাউন্টারসহ বেশকয়েকটি বাস ভাংচুর করে শ্রমিকরা।

সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন শ্রমিক আহত হয়েছেন। যদিও তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম জানা যায়নি।

আন্দোলনকারী শ্রমিকদের একজন মিতালী শ্রমিক ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক মিলাদ আহমদ রিয়াদ বলেন, শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের প্রায় আড়াই কোটি টাকা থাকার কথা। কিন্তু সেলিম আহমদ ফলিক আমাদের হিসাব দিয়েছেন মাত্র ৪১ লাখ টাকার। বাকি ২ কোটি টাকা তিনি আত্মসাত করেছেন। এই দাবি বিক্ষোব্দ শ্রমিক আজ মিছিল বের করলে তার কার্যালয় থেকে গুলি ছোঁড়া হয়। এরপর সংঘর্ষ বাঁদলে আমাদের কয়েকজন শ্রমিক আহত হয়েছেন।

সংঘর্ষের খবর পেয়ে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ ও পরিবহন মালিক সমিতির নেতারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

ঘটনাস্থল থেকে দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুলল ফজল বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সংঘর্ষ থামিয়েছে। তবে এখনও বিক্ষোব্দ শ্রমিকরা টার্মিনাল এলাকায় অবস্থান করছে। তাদের বুঝিয়ে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। হতাহতের ব্যাপারে এখনই কিছু বলা যাবে না।

গুলি ছোঁড়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শ্রমিকদের কাছ থেকে আমিও এমন অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

ঘটনাস্থল থেকে সড়ক পরিবহন মালিক সমিাতি সিলেট জেলা শাখার সহ-সভাপতি আবুল কালাম বলেন, আমরা বিষয়টি সমঝোতা করে দেওয়ার চেষ্টা করছি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সিলেট সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিকের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

শান্তিবার্তা ডট কম/২ জুন ২০২০