শিরোনাম
  সুনামগঞ্জে ১৪ শর্ত মেনে পড়তে হবে ঈদের নামাজ       ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন আক্রান্ত       করোনায় এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যানের মৃত্যু       যাচাই-বাছাইয়ের পর ‘সঠিক’ ব্যক্তির হাতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ‘ঈদ উপহার’       ছাতক উপজেলাবাসীকে ঈদ মোবারক- শাহ্ আবুল কাশেম হারুন       Dreams of youth- (তারুণ্যের স্বপ্ন )       সিলেটে করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসকের মৃত্যু, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন সম্পন্ন       সিলেট বিশ্বনাথে আরও ৬ পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত       দিরাইয়ে নারায়ণগঞ্জ ফেরত দুটি পরিবারকে ছাত্রলীগ নেত্রী সুইটি’র উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী প্রদান।       সুনামগঞ্জে ৪ জনসহ সিলেটে নতুন ৪৫ জন করোনায় আক্রান্ত    


বিশেষ প্রতিনিধিঃ

করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে এবার সুনামগঞ্জ জেলায় ঈদের নামাজ ঈদগাহ বা খোলা জায়গার বদলে পাড়া বা মহল্লার মসজিদে পড়তে নির্দেশনা দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

নির্দেশনায় মাস্ক পরিধান করে নামাজ আদায় ও কোলাকুলি, হ্যান্ডশেক(হাত মেলানো) থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে মসজিদে ঈদ জামাত আয়োজনের ক্ষেত্রে সুরক্ষার ব্যবস্থা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ১৩টি শর্ত দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

শুক্রবার গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সুনামগঞ্জ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টা, সকাল ৮টা, সকাল সাড়ে ৮টা ও সকাল ৯টায় মোট চারটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।।

এছাড়া দেওয়া আরও ১৪টি শর্ত রয়েছে। এগুলো হলো- স্থানীয় বা মহল্লার ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে, কোন অবস্থাতেই ঈদগাহে বা খোলা জায়গায় নামাজ আদায় করা যাবে না, জামাতে আসার পূর্ব ওযু করে আসতে হবে, অবশ্যই মাস্ক পরিধান করে আসতে হবে এবং জায়নামাজ (যদি থাকে) সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে, এক কাতার অন্তর অন্তর দাড়াতে হবে,পরস্পর পরস্পর হতে অন্তত ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, শিশু, বয়োবৃদ্ধ, যে কোনো অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা জামাতে অংশ নিতে পারবেন না, ঈদ নামাজের জামাতের সময় মসজিদে কার্পেট, কাপর বিছানো যাবে না, ওযুর স্থানে সাবানসহ হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে এবং দুই জামায়াতের মাঝে মসজিদে স্যানিটাইজার রাখতে হবে, এক জামাতে জায়গা না পেলে পরের জামাতের জন্য অপেক্ষা করতে হবে, মহল্লার মুসল্লি আনুমানিক হিসেব করে একাধিক জামাতের ব্যবস্থা রাখতে হবে। সর্বক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যক্তিগত ও সকলের নিরাপত্তা রক্ষা করে জামাতে নামাজ আদায় করতে হবে, নামাজ শেষে কোনও কোলাকুলি বা হ্যান্ডশেক করা থেকে বিরত থাকতে হবে, করোনাভাইরাস মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ঈদের নামাজ শেষে আল্লাহর কাছে দোয়া করতে খতিব ও ইমামদের প্রতি অনুরোধ করা হয়েছে, খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি এসব নির্দেশনার বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবে।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আহাদ বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে এ সিদ্ধান্তগুলো নেওয়া হয়েছে এবং সবাইকে সেই শর্ত মেনেই নামাজ আদায় করতে হবে।

শান্তিবার্তা ডট কম/২৩ মে ২০২০