শিরোনাম


তাহিরপুর প্রতিনিধিঃ

নামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় প্রথম ৬ জনের করোনায় শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে ৪ জন ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের গার্মেন্টসের কর্মী। ওইসব এলাকা থেকে ফেরায় তাদের করোনা পরীক্ষার জন্য গত ২২ এপ্রিল নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিলো। তবে দীর্ঘদিনের পরীক্ষা ফল ফলাফল না আসায় তারা আবার গার্মেন্টসে কাজে ফিরে যান।

এরমধ্যে মঙ্গলবার (৫ মে) আসা রিপোর্টে জানা গেলো তাদের করোনা পজিটিভ। উপজেলায় শনাক্ত হওয়া আরেক ব্যক্তি মঙ্গলবার হাওরে ধান কাটায় ছিলেন। শনাক্ত হওয়া একমাত্র তরুণীকেই কেবল ঘরে পাওয়া গেছে।

নমুনা সংগ্রহের পর তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হলেও ফলাফল আসতে বিলম্ব হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টিন মানেনি তারা। অবাধে চলাফেরা করেছেন গ্রামে ও বাজারে। এজন্য স্থানীয় বাসিন্দাদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

মঙ্গলবার (৫ মে) দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরীক্ষার ফলাফলে ছয়জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

এই ছয়জন আক্রান্তের মধ্যে ৩ জন পুরুষ। যাদের বয়স ৪৫, ৩৫ ও ১৬ বছর। বাকি ৩ নারীর দুইজনের বয়স ৩০বছর ও অন্যজনের বয়স ১৮ বছর। তারা সবাই উপজেলার দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের কাউকান্দি গ্রামের বাসিন্দা। এই ছয়জনের মধ্যে ৪ জনই এখন তাদের নিজ নিজ কর্মস্থল ঢাকায় চলে গেছেন।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, গত ২২ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও ঢাকা ফেরত এই ছয়জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার জন্য বলা হলেও তারা তা মানেনি। বরং অবাধ ঘোরাফেরা করেন। আর এর মধ্যেই আক্রান্তদের চার জন গত চার দিন আগে আবারো ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে চলে গেছেন। বাড়িতে থাকা আক্রান্ত একজন মঙ্গলবার সকাল থেকে ধান কাটার কাজে ছিলেন। দুপুরে করোনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসলে তাকে জমির ধানকাটা থেকে তুলে নিজ ঘরে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি আক্রান্ত ১ তরুণীকেও আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

শান্তিবার্তা ডট কম/৫ মে ২০২০