শিরোনাম
  বিধি-নিষেধ শিথিলতার মেয়াদ আর বাড়ছে না,চলবে ৫ আগস্ট পর্যন্ত       জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সাকিবের ব্যাটে বাংলাদেশের সিরিজ জয়       মাগুরায় সরকারি ভাতাভোগীর টাকা অন্যের মোবাইলে       অ্যাডভোকেট শফিকুল আলমের মৃত্যুতে পরিকল্পনামন্ত্রীর শোক       পল্লীবন্ধু হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল       পাগলা বাজারে মনসুর ফ্যাশনের উদ্বোধন       নরসিংদীতে কাভার্ডভ্যান-লেগুনা সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৬       মেসেঞ্জারে ঢাবি ছাত্রীকে হেনস্তা, তদন্ত কমিটি গঠন       সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত       ইভ্যালি’র কার্যালয়ে তালা, হটলাইনেও মিলছে না সাড়া!    


Spread the love

মোশাররফ হোসেনঃ

ছাতকের কৈতক ২০ শয্যা হাসপাতালের সাবেক মেডিকেল অফিসার,সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের ক্ষুদিরাই গ্রামের ডাক্তার মোহাম্মদ জসিম উদ্দীন বর্তমানে নবগঠিত দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার স্বাস্হ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অফিসার হিসেবে কর্মরত।কর্মকালীন সময় স্বল্প পরিসরে হলেও তিনি আচার-আচরন,সেবা ও কর্মদক্ষতায় আকাশ ছোয়া জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।সুনামগঞ্জ তথা সিলেটের সর্বত্র ডাঃ মোহাম্মদ জসিম উদ্দীন একটি সুপরিচিত নাম।


প্রানঘাতী করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ঘরবন্দিতে অত্যন্ত দক্ষতার সহিত কাজ করছে সুনামগঞ্জ’র দঃ সুনামগঞ্জ উপজেলার স্বাস্হ্য বিভাগ। এ মহামারিতে জনসচেতনতার পাশাপাশি নিজ উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে চিকিৎসা দিতেও কৃপনতা করছে না উপজেলা স্বাস্হ্য প্রশাসন।


বিশেষ করে এখানকার স্বাস্হ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও)’র নেতৃত্বে রোদ-বৃষ্ঠি উপেক্ষা করে প্রতিনিয়ত চলছে করোনার জন্য জনসচেতনতার কার্যক্রম।সুতরাং,এই যখন বাস্তবতা তখন এবার অভিনব কায়দায় মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্ঠান্ত করলেন টিএইও ডাঃ মোহাম্মদ জসিম উদ্দীন।সূদূর গ্রাম থেকে গড়ে উঠা ডাঃ জসিম উদ্দীন সুনামগঞ্জে এখন মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।তার সুশৃঙ্খল কর্মদক্ষতায় নবগঠিত দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলায় স্বাস্হ্যবিভাগে
প্রানচাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।নিরবে,নিবৃত্তে এ অঞ্চলের মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে চলেছেন ডাঃ জসিম উদ্দীন।করোনা ভাইরাস শুরু হলে হাওয়ায় নিরুদ্দেশ হয়ে যান অসংখ্য চিকিৎসক,নার্সরা।বড় বড় নামী দামি ক্লিনিকগুলো,
ডায়াগনস্টিক সেন্টার,প্যাথলজি বিভাগ বন্ধ করে কর্নধাররা লকডাউনে চলে যান।মানুষজন হতবম্ভ হয়ে পড়ে।বিপদকালীন সময়ে সকল ধরনের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়েন আপামর জনগোষ্ঠী। সরকারের কঠোর নজরদারিতে স্বল্প পরিসরে কিছু চিকিৎসক দায়িত্ব পালনে সচেষ্ঠ রয়েছেন।তারই অন্যতম এই ডাঃ জসিম উদ্দীন।যাকে প্রয়োজনের তাগিদে সর্বত্র পাওয়া যাচ্ছে।এমনকি উনার মুঠোফোন সবসময় খোলা রয়েছে।যেকোনো লোকজন প্রয়োজনে যোগাযোগ করলে উনার সেবা পেতে সহজতর হচ্ছে।তাই সুনামগঞ্জ’র দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার সুযোগ্য কর্নধার ডাঃ জসিম উদ্দীন কর্মদক্ষতায় অবহেলিত জনপদের নিকট মানবতার এক ফেরিওয়ালা হিসেবে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

পূর্ব পাগলা ইউনিয়ন পরিষদসহ সচেতন নাগরিকবৃন্দকে নিয়ে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে করণীয় সচেতনতামুলক আলোচনায়।

উনার সহধর্মিণী ও একজন চিকিৎসক।উনার পরিবারসহ সবাইকে মহান সৃষ্ঠিকর্তা বাকি জীবনে মানুষের কল্যানে কাজ করার তৌফিক যেন দান করেন, এ অঞ্চলবাসী এটিই কামনা করছেন।


এ ব্যাপারে এ প্রতিনিধি মানবতার ফেরিওয়ালা ডাঃ মোহাম্মদ জসিম উদ্দীন’র সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,ভাই কর্মকালীন সময়ে আমার দায়িত্ব কর্তব্য সঠিকভাবে পালনে আমি সচেষ্ঠ রয়েছি।
গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্ব এমএ মান্নান মহোদয়ের নিজ এলাকা ও আমার জন্মভূমিতে নবগঠিত উপজেলা গঠিত হওয়ায় আমরা সবাই গর্বিত। এ অঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন অবহেলিত ও অনুন্নত ছিল।যোগ্য নেতৃত্বের ফলে নবগঠিত উপজেলা তৈরি হওয়ায় এখানকার মানুষজন ডিজিটাল সময়ে পদার্পন করেছে।এখানকার দায়িত্ব পালনে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে পেরে গর্ববোধ করছি। আপনাদের দোয়া ভালোবাসায় বাকি সময়টুকু কাটাতে চাই।সকলের দোয়া ও ভালোবাসা কামনা করি।

শান্তিবার্তা ডট কম/৪ মে ২০২০/মোশাররফ হোসেন