শিরোনাম
  ১০ টাকার চালের নতুন তালিকা করার নির্দেশ       বুক ভরে নিও- মাসুদ আহমেদ       করোনা আক্রান্ত ছিলেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান       সুনামগঞ্জে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা বৃত্তি ও বাইসাইকেল বিতরণ       করোনা ভাইরাস আতঙ্কে মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করণীয়       সিলেটে আরো ২ জন করোনা পজিটিভ       পদক্ষেপ’র সুরমা ব্রাঞ্চের আওতায় ৯৬ টি পরিবারে নগদ টাকা ও ২০০ টি পরিবারে খাদ্য সামগ্রী বিতরন       দোয়ারাবাজারের খাসিয়ামারা বালুমহাল ইজারা না দেওয়ার দাবি       সিলেটে করোনায় মারা যাওয়া কারাবন্দির লাশ নেয়নি পরিবার       কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রথম দু’জন করোনায় আক্রান্ত    


বিশেষ প্রতিনিধি।

আমি নিন্দীয়া সিনহা। আমি মনিপুরী মেয়ে। আমি মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মেয়ে।আমার গ্রামের নাম গকুল সিংহের গাঁও। বাবার চাকুরী সূত্রে আমার জন্ম বাংলাদেশ চা গবেষণা ইন্সটিটিউট শ্রীমঙ্গল এর সরকারি কোয়ার্টার এ। সেখানেই বেড়ে ওঠা। পড়াশোনা করি প্রথমে বি.টি.আর.আই. উচ্চ বিদ্যালয়। এরপর মাধ্যমিক : মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়। উচ্চ মাধ্যমিক : শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজ। স্নাতক: বাংলা বিভাগ এম.সি.কলেজ. সিলেট। স্নাতকোত্তর : এম.সি.কলেজ. সিলেট।

স্নাতক ৩য় বর্ষে থাকা অবস্থায় বিয়ে হয় আমার। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেই হাসবেন্ড এর সহযোগিতায় আমি পড়াশোনা শেষ করি। কিন্তু জবের জন্য খুব বেশি ট্রাই করতে পারিনি নানা কারনে। আমার দুই ছেলে। ওদের সময় দিতে গিয়ে আসলে জব করা হয়ে উঠেনি। প্রাইভেট ইংরেজি মাধ্যম স্কুল এ জব হয়েছিল কিন্তু সন্তানের কথা ভাবতে গিয়ে আর করিনি।

আমি বাবা মায়ের বড় মেয়ে। দায়িত্বটাও বেশি। আমি বাবার জন্য কিছু একটা করতে চাই। বাবা রিটায়ার্ড করেছেন। এখন বাবার দায়িত্বটা আমার নেয়া উচিৎ। হতাশা যখন আমায় ঘিরে ধরেছিল, তখন আমি সিদ্ধান্ত নেই আমায় কিছু করতেই হবে। সেই ইচ্ছে থেকে আমি ২০১৯ সালে অক্টোবর এর শেষে আমি “ফিজেত ” নামে মনিপুরী পণ্য নিয়ে একটি পেইজের মাধ্যমে কাজ শুরু করি। চলছিলো একরকম, কিন্তু মার্চ মাসে আমি সাউদা আপুর মাধ্যমে উই এ যুক্ত হই। সেই থেকে আমার জীবনের লক্ষ্য আমি পেয়ে গেছি। আমি অনেক সাড়া পেয়েছি।

উই এর সান্নিধ্য পেয়ে আমি এখন লক্ষ্য পূরনের উদ্দেশ্যে এগিয়ে চলছি। এখন আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি আমি সফল অবশ্যই হবো। আমি সকলের সহযোগীতা ও আশীর্বাদ কামনা করছি।

নিন্দীয়া সিনহা
স্বত্তাধিকারী
ফিজেত।