শিরোনাম


সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে আলোচিত শিশু তুহিন মিয়া হত্যা মামলায় রায় দিয়েছে আদালত। রায়ে তুহিন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির ও চাচা নাসির মিয়াকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। অপর চাচা জমসেদ মিয়া ও মাওলানা আব্দুল মোছাব্বিরকে খালাস দেওয়া হয়েছে। সোমবার বাবা ও চাচার মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

জানা যায়, ২০১৯ সনের ১৩ অক্টোবর গভীর রাতে দিরাই উপজেলার কেজাউড়া গ্রামের বসতঘর থেকে তুলে নিয়ে ঘুমন্ত শিশু তুহিন মিয়াকে জবাই করে তার লিঙ্গ, দুই কান কেটে পেটে দুটি ছুরি বিদ্ধ করে গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়। ঘটনার দুই দিন পর চাচাতো ভাই শাহরিয়ার আহমদ ও তার চাচা হত্যাকাণ্ডের ঘটনা আদালতে ৬৪ ধারার জবানবন্দীদেন তাতে তারাজড়িত বলে উল্লেখ করা হয়। বারবার রিমান্ডের পর বাবা আব্দুল বাছির ও চাচা জমসেদ, মাওলানা আব্দুল মোছাব্বির তুহিন হত্যার সাথে তারা জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেননি।

প্রতিপক্ষকে ফাসাতে শিশু তুহিনকে হত্যা করে জবাই করে কান ও লিঙ্গ কেটে পেটে দুটি ছুরিবিদ্ধ করে কদম গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। দুই ছুরিতে তাদের প্রতিপক্ষ দুইজনের নাম লিখা ছিলো।

গত ৩০ ডিসেম্বর বাবা আব্দুল বাছির, চাচা জমসেদ, নাছির, মাওলানা মোছাব্বির ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ারের বিরুদ্ধে আদালতে আলাদাভাবে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। ১০ মার্চ তুহিন হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত শিশু চাচাতো ভাই শাহরিয়ার আহমদকে ৮ বছরের আটকাদেশ দেন শিশু আদালতের বিচারক মো. জাকির হোসেন।

জেলা ও দায়রা জজ ওয়াহিদুজ্জামান শিকদার শিশু তুহিন হত্যায় বাবা আব্দুল বাছির ও চাচা নাসির মিয়াকে মৃত্যুদণ্ড দেন। কারাগারে আটক অপর দুই চাচা জমসেদ ও মোছাব্বিরকে খালাস দিয়েছেন আদালত।